মঙ্গলবার, ২২ জুন, ২০১০

সেরিওজা এক্সপ্রেস-০২

বিশ্বকাপ, বিশ্বকাপ, বিশ্বকাপ

"গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ" চলছে মহা আড়ম্বরে। আকাশে-বাতাসে পতাকা, টিভিরুম- ক্যান্টিনে তর্ক, ফেসবুকের স্ট্যাটাসে গলাগলি-গালাগালি।


মোটের উপর বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডের খেলা দেখে খুব প্রীত হয়েছি, এমন বলা যাবে না। আর্জেন্টিনা প্রথম খেলায় কোনমতে জিতলো, ব্রাজিলকেও বেগ পেতে হলো বিপক্ষের ডিফেন্স ভেদ করতে। ইতালি-ফ্রান্স-ইংল্যান্ড করলো ড্র। সাম্প্রতিক সময়ের সেরা দলটি নিয়ে বিশ্ব কাঁপাতে আসা স্পেন তো হেরেই বসলো অঘটনের জন্ম দিয়ে। প্রথম রাউন্ডে দুর্দান্ত খেলে মনে আতঙ্ক তুলে দিয়েছিলো জার্মানি। গতি-টিম কেমিস্ট্রি-পাসিং ফুটবলে অদম্য সেই জার্মানিকে মনে হয়েছিলো বিশ্বকাপ ঘরে তুলতেই তাদের আসা।

রবিবার, ১৩ জুন, ২০১০

পাসওয়ার্ড রহস্য

ইষ্পাতের স্নায়ূর কারণে এসপিওনাজ জগতে 'বরফমানব' উপাধি লাভ করা রাশান সিক্রেট সার্ভিসের জেনারেল সের্গেই তুর্গেনিভকে কেউ কখনো বিচলিত হতে দেখেনি। অথচ হাতের কার্টিয়ারের দিকে চেয়ে "আর মাত্র ৫২ মিনিট !" বলবার সময় তার মাঝেও যেন খানিক অস্থিরতা লক্ষ্য করা গেলো।

ফ্রুলাইন মারিয়া টিশবাইনের হাতের আঙ্গুলগুলো প্রবল বেগে আরেকবার ঝড় তুললো কীবোর্ডের উপর। "হলো না।" মারিয়া টিশবাইন কেঁদে ফেলবেন যেন। "এবারো হয়নি। 'আইজ্যাক আসিমভ' লিখে টাইপ করেছিলাম- এটাও পাসওয়ার্ড নয় !! "

মঙ্গলবার, ১ জুন, ২০১০

ভোরের সূর্য দেখে মুমূর্ষু শিশির বলে, "হায় ! কোন সুখ ফুরায়নি যার, তার জীবন কেনো ফুরায় ?"

ভৌতিক গল্প পড়ে ছেলেবেলা থেকেই একটা ছেলেমানুষী মজা পাই। দেশী-বিদেশী সাহিত্যের  বিখ্যাত লেখকেরা গদ্যসাহিত্যের এই ধারাটি নিয়ে কাজ করতে খুব অলসতা করেছেন- অনুভব করা যায়। যদিও প্রচলিত ধারায় সবচেয়ে বেশি ভূতুড়ে গল্প লেখা হয়েছে কেবল ভূত এবং মৃত মানুষদের নিয়ে, তবুও  ভৌতিক গল্পকে কেবল ওরকম রুপে ঠিক উপভোগ করি না। ভূত ছাড়াও যে কেবল বর্ণনা এবং পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে চমৎকার সব গা-ছমছমে ভৌতিক গল্প লেখা যায়, বাংলা সাহিত্যে সেই কাজটা খুব সম্ভব সবচেয়ে দারুণভাবে করে গিয়েছেন দুই বন্দোপাধ্যায়;  তারাশঙ্কর এবং মাণিক। ... এবং আরো ভালোভাবে করে গিয়েছেন ভিনদেশী লেখকেরা।